07, February, 2023
Home » গুম খুন স্যাংশন নিয়ে জাতিসংঘ ও যুক্তরাষ্ট্রের বিরুদ্ধে হাসিনার যুদ্ধ ঘোষণা
secret-meeting

গুম খুন স্যাংশন নিয়ে জাতিসংঘ ও যুক্তরাষ্ট্রের বিরুদ্ধে হাসিনার যুদ্ধ ঘোষণা

আজ সন্ধ্যায় গুলশানের একটি সেইফ হাউজে ডিজিএফআইর উদ্যোগে এক গোপন মিটিং অনুষ্ঠিত হয়। এতে গুম খুন সংক্রান্ত জাতিসংঘ ও যুক্তরাষ্ট্রের নথির বিরুদ্ধে প্রোপাগান্ডা যুদ্ধ চালু করার বিভিন্ন দিক নিয়ে আলোচনা করা হয়। সিদ্ধান্ত হয় দেশে বিদেশে ব্যাপকভাবে প্রোপাগান্ডা চালানো হবে। এজন্য যত অর্থ প্রয়োজন সব রাষ্ট্রীয় ফান্ড থেকে খরচ করা হবে। সেমিনার, আলোচনা, টকশো, ভিডিও অডিও ক্লিপ তৈরি করে দেখানো হবে যে, এইসব তালিকা বিএনপি/জামায়াতের প্রোপাগান্ডা মাত্র, বাস্তবে এসব ঘটেনি। এই যুক্তির সমর্থনে ২/১ জনকে হাজির করা হবে যারা ছাড়া পেয়েছেন বা মুক্ত আছেন। তাছাড়া এইসব তালিকার মধ্যে নানা রকম খুচরা পয়েন্ট ‍তুলে তা বড় করে জাতিসংঘের তালিকাকে ভুল ও বানোয়াট বলার চেষ্টা করা হবে। বিদেশের বিভিন্ন নামী দামী মিডিয়ায় টাকা খর্চ করে লেখানো হবে। এমনকি লবিয়িস্ট ফার্মের মাধ্যমে টাকা খরচ করে যুক্তরাষ্ট্র ও ইউরোপিয়ান পার্লামেন্টের এমপিদেরকে হায়ার করে তাদের মাধ্যমে সংসদে পয়েন্ট রেইজ করে বিতর্ক তৈরি করা হবে। ইতেমধ্যে উপস্থিত সুলতানা কামাল লেখালেখি শুরু করে দিয়েছেন জানিয়ে সন্তোষ প্রকাশ করা হয়। তবে এসব তৎপরতা কতদিন চালানো বাস্তবসম্মত হবে, তা নিয়ে অনেকের সংশয় আছে, এমনকি ফলাফল নিয়েও।

বৈঠকে প্রতিরক্ষা গোয়েন্দা অধিদপ্তরের (DGFI) বর্তমান মহাপরিচালক মেজর জেনারেল আহমেদ তাবরেজ শামস ও অবসরপ্রাপ্ত কর্মকর্তাগন লে.জে. (অব.) মোল্লাহ ফজলে আকবর, লে.জে. (অব.) মামুন খালেদ, এবং সংশ্লিষ্ট কর্মকর্তাগণ ছাড়াও আরও অনেকের মধ্যে উপস্থিত ছিলেন সর্বজনাব প্রফেসর ইমিতিয়াজ আহমেদ, মাহফুজ আনাম, মতিউর রহমান, প্রফেসর মেসবাহ কামাল, মোহাম্মদ এ আরাফাত, সুলতানা কামাল, মোজাজ্জেল বাবু গং।

উল্লেখ্য গুম খুনের মত মারত্মক মানবতাবিরোধী অপরাধের সাথে সংশ্লিষ্ট থাকায় বাংলাদেশের র্রাপিড অ্যাকশন ব্যাটলিয়ন, ঐ বাহিনীতে কাজ করা ৭ কর্মকর্তার যাদের মধ্যে ২ জন পুলিশ প্রধান ও ৫ সেনা কর্মকর্তার বিরুদ্ধে যুক্তরাষ্ট্র সরকার নিষেধাজ্ঞা আরোপ করে। এই নিষেধাজ্ঞা নিয়ে সরকার প্রধান থেকে শুরু করে পুরো সরকার ব্যাপক প্রতিক্রিয়া দেখায়, বারে বারে ধর্ণা দেয় এটি তুলে নিতে। যুক্তরাষ্ট্র তুলে তো নেয়ই নি, উল্টো আরও নতুন তালিকা নিয়ে স্যাংশন আসার কথা শোনা যাচ্ছে।

অন্যদিকে জাতিসংঘের মানবাধিকার কমিশনের গুমবিষয়ক ওয়ার্কিং গ্রুপ বিভিন্ন সময় গুমের শিকার হওয়া ৭৬ জনের একটি তালিকা গত বছর বাংলাদেশ সরকারকে দেয়। এ বিষয়ে চলতি বছরের ফেব্রুয়ারিতে সুইজারল্যান্ডের জেনেভায় মানবাধিকার পরিষদের গুমবিষয়ক ওয়ার্কিং গ্রুপে আলোচনা হয়। সর্বশেষ ১৪ আগস্ট জাতিসংঘের মানবাধিকারবিষয়ক হাইকমিশনার মিশেল ব্যাশেলেত ঢাকা সফরের সময় এ তালিকা নিয়ে সরকারের সঙ্গে কথা বলেন, এবং স্বাধীন ও নিরপেক্ষ তদন্তের জন্য চাপ প্রয়োগ করে। মিশেল ব্যাশেলেতের সঙ্গে আলোচনায় সরকারের পক্ষ থেকে বলা হয়, ওয়ার্কিং গ্রুপ ৭৬ জনের যে তালিকা দিয়েছে, তাঁদের মধ্যে ১০ জনের খোঁজ পাওয়া গেছে। বাকিদের মধ্যে ১০ জনকে খুঁজে পেতে পুলিশ সহযোগিতা করতে চাইলেও তাঁদের স্বজনদের কাছ থেকে সাড়া পাওয়া যায়নি। বাকি ৫৬ জন ‘পলাতক’ বা নিখোঁজ। অবশ্য সরকার শুরু থেকেই গুমের ঘটনাগুলো অস্বীকার করে আসছে।

জাতিসংঘের মানবাধিকার পরিষদের গুমবিষয়ক ওয়ার্কিং গ্রুপ সরকারের কাছে গুমের শিকার হওয়া যে ৭৬ জনের তালিকা দিয়েছে, তাঁদের মধ্যে রয়েছেন:
১. মোহাম্মদ শফিক উল্লাহ মোনায়েম। তাঁকে ২০০৭ সালের ১ ডিসেম্বর বরিশাল থেকে র‌্যাব পরিচয়ে তুলে নিয়ে যাওয়া হয়।
২. মো. হাসান খান। গাজীপুর থেকে ২০০৮ সালের ২৫ মে তাঁকে র‌্যাব পরিচয়ে তুলে নেওয়া হয়।
৩. মোহাম্মদ চৌধুরী আলম। তাঁকে ঢাকা থেকে ২০১০ সালের ২৫ জুন আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনীর সদস্য পরিচয় দিয়ে কিছু লোক তুলে নিয়ে যায়।
৪. সানায়াইমা রাজকুমার ওরফে মেঘেন। জন্মসূত্রে ভারতীয় নাগরিক। তাঁকে ২০১০ সালের ২৯ সেপ্টেম্বর সাদাপোশাকের কিছু ব্যক্তি ঢাকা থেকে তুলে নিয়ে যায়। এ সময় পোশাকধারী পুলিশও ছিল।
৫. মোহাম্মদ রফিকুল ইসলাম। র‌্যাব পরিচয়ে ২০১১ সালে তাঁকে ঢাকা থেকে তুলে নিয়ে যায়।
৬. তপন দাস। ২০১১ সালের ৩ আগস্ট তাঁকে কিছু ব্যক্তি ডিবির সদস্য পরিচয় দিয়ে ঢাকা থেকে তাঁকে তুলে নিয়ে যায়।
৭. হাবিবুর রহমান হাওলাদার। তাঁকে ২০১২ সালের বাগেরহাট থেকে পুলিশ পরিচয়ে তুলে নিয়ে যাওয়া হয়।
৮. মোহাম্মদ নজরুল ইসলাম। সিরাজগঞ্জ থেকে র‌্যাব পরিচয়ে তুলে নিয়ে যাওয়া হয়।
৯. আল মোকাদ্দাস হোসেন। ঢাকার সাভার থেকে ২০১২ সালে ডিবি ও র‌্যাব পরিচয়ে দিয়ে তুলে নিয়ে যায় কয়েকজন ব্যক্তি।
১০. মোহাম্মদ ওয়ালিউল্লাহ। ঢাকার সাভার থেকে ২০১২ সালে তাঁকে ডিবি ও র‌্যাব পরিচয়ে তুলে নিয়ে যাওয়া হয়।
১১. কে এম শামীম আখতার। ২০১২ সালে তাঁকে ঢাকা থেকে আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনীর সদস্য পরিচয়ে তুলে নেওয়া হয়।
১২. মোহাম্মদ ইমাম হাসান। ২০১২ সালে ঢাকা থেকে অপহৃত হন।
১৩. পারভেজ হুমায়ুন কবির ও ১৪. মোহাম্মদ সাইফুল ইসলাম (হিরো)। দুজনকে ২০১৩ সালে কুমিল্লা থেকে আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনী পরিচয়ে তুলে নিয়ে যাওয়া হয়।
১৫. মোহাম্মদ তৈয়ব প্রামাণিক। নাটোর থেকে ২০১৪ সালে র‌্যাব পরিচয়ে তুলে নিয়ে যাওয়া হয়।
১৬. মোহাম্মদ কামাল হোসেন পাটোয়ারী। নাটোর থেকে ২০১৪ সালে র‌্যাব পরিচয়ে তুলে নিয়ে যাওয়া হয়।
১৭. মোহাম্মদ ইব্রাহীম খলিল। নাটোর থেকে তাঁকে ২০১৪ সালে র‌্যাব পরিচয়ে তুলে নিয়ে যাওয়া হয়।
১৮. কেইথেল্লাকপাম নবচন্দ্র (শিলহেইবা)। জন্মসূত্রে ভারতীয়। তাঁকে ২০১৫ সালের ১১ ফেব্রুয়ারি ঢাকা থেকে সাদা পোশাকের পুলিশ ও গোয়েন্দারা তুলে নিয়ে যায়।
১৯. মো. সেলিম রেজা (পিন্টু)। তাঁকে ২০১৩ সালের ডিসেম্বরে আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনীর সদস্য পরিচয়ে তুলে নিয়ে যায়।
২০. মো. আসাদুজ্জামান রানা (বাবু)। ২০১৫ সালে ঢাকা থেকে র‌্যাব পরিচয়ে তুলে নিয়ে যাওয়া হয়।
২১. করিম জাহিদুল ওরফে তানভীর, ২২. মো. মাজহারুল ইসলাম ওরফে রাসেল, ২৩. আল–আমিন, ২৪. ইসলাম সাজেদুল ওরফে সুমন ও ২৫. মোহাম্মদ আবদুল কাদের ভূঁইয়া ওরফে মাসুম। এই পাঁচজনকে ঢাকা থেকে তুলে নিয়ে যাওয়া হয়।
২৬. মো. কাওসার হোসেন। তাঁকে ঢাকা থেকে ২০১৩ সালের ৫ ডিসেম্বর র‌্যাব পরিচয়ে তুলে নিয়ে যাওয়া হয়।
২৭. এ এম আদনান চৌধুরী। র‌্যাব পরিচয়ে তাঁকে ঢাকা থেকে ২০১৩ সালের ৫ ডিসেম্বর তুলে নিয়ে যাওয়া হয়।
২৮. মোহাম্মদ ফখরুল ইসলাম। ২০১৩ সালের ১১ মে ঢাকা থেকে র‌্যাব পরিচয়ে তুলে নিয়ে যাওয়া হয়।
২৯. নুরুল আমিন। লক্ষ্মীপুর থেকে তাঁকে ২০১৫ সালের ২৯ মার্চ পুলিশ পরিচয়ে তুলে নিয়ে যাওয়া হয়।
৩০. শামীম উদ্দিন প্রধান। বগুড়া থেকে তাঁকে ২০১৫ সালের ২৩ ফেব্রুয়ারি র‌্যাব পরিচয়ে তুলে নিয়ে যাওয়া হয়।
৩১. নুর আলম। গাজীপুর থেকে তাঁকে ২০১৫ সালের ১২ ফেব্রুয়ারি আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর পরিচয়ে তুলে নিয়ে যাওয়া হয়।
৩২. সোহেল রানা। ২০১৫ সালের ১০ ফেব্রুয়ারি ঢাকা থেকে তাঁকে আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর সদস্য পরিচয়ে তুলে নিয়ে যাওয়া হয়।
৩৩. সাজ্জাদ হোসেন শেখ। গাজীপুর থেকে ২০১৫ সালের ২১ আগস্ট র‌্যাব পরিচয়ে তাঁকে তুলে নিয়ে যাওয়া হয়।
৩৪. মো. হোসেন চঞ্চল। ঢাকা থেকে তাঁকে ২০১৩ সালের ২ ডিসেম্বর ডিবি পরিচয়ে তুলে নেওয়া হয়।
৩৫. পারভেজ হোসেন। ঢাকা থেকে ২০১৩ সালের ২ ডিসেম্বর ডিবি পরিচয়ে তুলে নেওয়া হয়।
৩৬. মাহফুজুর রহমান সোহেল। ২০১৩ সালে ২ ডিসেম্বর ঢাকা থেকে ডিবি পরিচয়ে তুলে নেওয়া হয়।
৩৭. জহিরুল ইসলাম। ২০১৩ সালে ২ ডিসেম্বর ঢাকা থেকে ডিবি পরিচয়ে তুলে নেওয়া হয়।
৩৮. মো. নিজাম উদ্দিন। র‌্যাব ও ডিবি পরিচয়ে তাঁকে ঢাকা থেকে ২০১৩ সালের ৬ ডিসেম্বর তুলে নিয়ে যায়।
৩৯. মীর আহমদ বিন কাশেম। ২০১৬ সালের ৯ আগস্ট ঢাকা থেকে তাঁকে আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর পরিচয়ে তুলে নিয়ে যাওয়া হয়।
৪০. মাহাবুব হাসান। ২০১৫ সালে নারায়ণগঞ্জ থেকে তাঁকে ডিবি পরিচয়ে তুলে নেওয়া হয়।
৪১. কাজী ফরহাদ। ২০১৫ সালে নারায়ণগঞ্জ থেকে তাঁকে ডিবি পরিচয়ে তুলে নেওয়া হয়।
৪২. সম্রাট মোল্লা। ২০১৩ সালের ২৮ নভেম্বর ঢাকা থেকে তাঁকে ডিবি পরিচয়ে তুলে নেওয়া হয়।
৪৩. খালেদ হাসান। ২০১৩ সালের ২৮ নভেম্বর ঢাকা তাঁকে তুলে নেওয়া হয়।
৪৪. মোহাম্মদ তারিকুল আলম। ২০১৩ সালের ৭ মার্চ তাঁকে যশোর থেকে র‌্যাব পরিচয়ে তুলে নেওয়া হয়।
৪৫. আবদুল্লাহিল আযমী। ডিবি পরিচয়ে ঢাকা থেকে ২০১৬ সালের ২ আগস্ট তাঁকে তুলে নেওয়া হয়।
৪৬. মোহাম্মদ আখতার হোসেন। ডিবি পরিচয়ে রংপুর থেকে তাঁকে তুলে নেওয়া হয় ২০১৬ সালের ৩ মে।
৪৭. এস এম মোয়াজ্জেম হোসেন। ঢাকা থেকে তাঁকে ২০১৬ সালের ২৬ জানুয়ারি তিনজন অস্ত্রধারী তুলে নিয়ে যায়।
৪৮. মো. আবদুল কুদ্দুস প্রামাণিক। রাজশাহী থেকে ২০১৭ সালের ৩০ মার্চ তাঁকে আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনীর সদস্য পরিচয়ে চার ব্যক্তি তুলে নিয়ে যায়।
৪৯. মোহাম্মদ জাকির হোসেন। ২০১৩ সালের ৩ এপ্রিল ঢাকা থেকে র‌্যাব পরিচয়ে তাঁকে তুলে নিয়ে যায়।
৫০. মো. মাহাবুবুর রহমান ওরফে রিপন। ২০১৪ সালের ২১ মার্চ ঢাকা থেকে তাঁকে র‌্যাব তুলে নিয়ে যায়।
৫১. মোহাম্মদ সিদ্দিকুর রহমান (নাহিদ)। নরসিংদী থেকে তাঁকে ২০১৭ সালের ৯ জুন আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনীর সদস্য পরিচয়ে ৮ থেকে ১০ জন তুলে নিয়ে যায়।
৫২. মো. রেজাউন হোসেন। যশোর থেকে ২০১৭ সালের ৭ আগস্ট পুলিশ পরিচয়ে তাঁকে তুলে নিয়ে যায়।
৫৩. শেখ মোকলেসুর রহমান। সাতক্ষীরা থেকে ২০১৬ সালের ৪ আগস্ট সাতক্ষীরা থেকে পুলিশ পরিচয়ে তুলে নিয়ে যাওয়া হয়।
৫৪. মোহাম্মদ আবদুল্লাহ আল ফারুখ (রশিদ)। রাজশাহী থেকে ২০১৭ সালের ১৮ জুলাই র‌্যাব পরিচয়ে পাঁচ ব্যক্তি তাঁকে তুলে নিয়ে যায়।
৫৫. মো. হাসিনুর রহমান। ঢাকা থেকে ২০১৮ সালের ৮ আগস্ট ১০ থেকে ১৫ জন সশস্ত্র ব্যক্তি তাঁকে তুলে নিয়ে যায়।
৫৬. মোহাম্মদ আলতাফ হাওলাদার। যশোর থেকে ২০১৮ সালের ১৪ আগস্ট র‌্যাব পরিচয়ে তাঁকে তুলে নিয়ে যাওয়া হয়।
৫৭. রাজু ইসলাম। ২০১৫ সালের ২০ মার্চ ঢাকা থেকে ডিবি পরিচয়ে তাঁকে তুলে নিয়ে যাওয়া হয়।
৫৮. মোহাম্মদ ইকবাল হোসেন সরকার। নারায়ণগঞ্জ থেকে ২০১৯ সালের ১০ এপ্রিল তাঁকে ডিবি পরিচয়ে তুলে নিয়ে যাওয়া হয়।
৫৯. মোহাম্মদ জায়েদুর রহমান। নারায়ণগঞ্জ থেকে ২০১৯ সালের ১০ এপ্রিল তাঁকে ডিবি পরিচয়ে তুলে নিয়ে যাওয়া হয়।
৬০. মাইকেল চাকমা। ২০১৯ সালের ৯ এপ্রিল নারায়ণগঞ্জ থেকে তিনি নিখোঁজ হন।
৬১. ইসমাইল হোসেন। ২০১৯ সালের ১৯ জুন তিনি ঢাকায় নিখোঁজ হন।
৬২. মো. তারা মিয়া। ঢাকার মিরপুর থেকে ২০১২ সালের ১৪ আগস্ট আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনীর সদস্য পরিচয় দিয়ে কয়েকজন তাঁকে তুলে নিয়ে যায়।
৬৩. মনির হোসেন। ঢাকার গুলিস্তান থেকে ২০১০ সালের ২১ সেপ্টেম্বর র‌্যাব পরিচয়ে কিছু ব্যক্তি তাঁকে তুলে নিয়ে যায়।
৬৪. মোহাম্মদ নুর হোসেন (হিরু)। কুমিল্লার চৌদ্দগ্রাম থেকে ২০১১ সালের ২০ জুন আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনীর সদস্য পরিচয়ে তুলে নিয়ে যাওয়া হয়।
৬৫. মোহন মিয়া। ২০১৮ সালের ১০ জুন ঢাকা থেকে ডিবি পরিচয়ে তাঁকে তুলে নিয়ে যাওয়া হয়।
৬৬. জাকির হোসেন। ২০১৫ সালের ৭ এপ্রিল ঢাকার গুলশান থেকে আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনীর সদস্য পরিচয় দিয়ে তাঁকে তুলে নিয়ে যায়।
৬৭. ইফতেখার আহমেদ দিনার। ২০১২ সালের ২ এপ্রিল ঢাকার গুলশান এলাকা থেকে আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনীর সদস্য পরিচয় দিয়ে তাঁকে তুলে নিয়ে যায়।
৬৮. জুনায়েদ আহমেদ। ২০১২ সালের ২ এপ্রিল ঢাকার গুলশান এলাকা থেকে তাঁকে আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনীর সদস্য পরিচয়ে তুলে নিয়ে যায়।
৬৯. এম ইলিয়াস আলী। ২০১২ সালের ১৮ এপ্রিল ঢাকার বনানী থেকে আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারীর সদস্য পরিচয়ে তাঁকে তুলে নিয়ে যাওয়া হয়।
৭০. আনসার আলী। ২০১২ সালের ১৮ এপ্রিল ঢাকার বনানী থেকে আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারীর সদস্য পরিচয় দিয়ে তাঁকে তুলে নিয়ে যায়।
৭১. সাইদুর রহমান কাজী। ২০১৭ সালের ৫ এপ্রিল যশোর থেকে তাঁকে পুলিশ পরিচয়ে তুলে নিয়ে যাওয়া হয়।
৭২. মোহাম্মদ মোরশিদুল ইসলাম। ২০১৭ সালের ১৯ এপ্রিল রাজশাহীর তাহেরপুর থেকে তাঁকে তুলে নিয়ে যাওয়া হয়।
৭৩. আবদুল কুদ্দুস মোহাম্মদ। ২০১৭ সালের ৬ এপ্রিল র‌্যাব পরিচয়ে তাঁকে রাজশাহী থেকে তুলে নিয়ে যায়।
৭৪. ফরিদ আহমদ সৈয়দ। কুমিল্লা থেকে তাঁকে ২০১৪ সালের ১২ জানুয়ারি আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনীর সদস্য পরিচয় দিয়ে তাঁকে তুলে নিয়ে যাওয়া হয়।
৭৫. আলমগীর হোসেন। ২০১৪ সালের ১২ জানুয়ারি কুমিল্লা থেকে তাঁকে আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনীর সদস্য পরিচয়ে তুলে নিয়ে যায়।
৭৬. কল্পনা চাকমা। রাঙামাটি থেকে ১৯৯৬ সালের ১২ জুন অস্ত্রধারীরা তাঁকে তুলে নিয়ে যায়।

Leave a Comment

You may also like

Critically acclaimed for the highest standards of professionalism, integrity, and ethical journalism. Ajkerkotha.com, a new-generation multimedia online news portal, disseminates round-the-clock news in Bangla from highly interactive platforms.

Contact us

Copyright 2021- Designed and Developed by Xendekweb